General Knowledge About India - একনজরে ভারত সম্পর্কে জেনে নিন


General Knowledge About India - একনজরে ভারত সম্পর্কে জেনে নিন

Today GK Today Bengali sharing an important article about India. This is very important for Government Job Exam. So we have requested to all Aspirant read carefully this article.  General Knowledge about India.

একনজরে ভারত সম্পর্কে

একনজরে ভারত সম্পর্কে জেনে নিন, যেগুলি সমস্ত প্রকার সরকারী চাকরীর পরীক্ষা যেমন WBCS, PSC, SSC, WBP, RRB ইত্যাদি পরীক্ষার জন্যে গুরুত্বপূর্ন।  মনোযোগ সহকারে আর্টিকেল টি পড়বেন, কারন চাকরীর পরীক্ষায় এখান থেকে প্রশ্ন পেয়ে যাবেন।



ভারতীয় প্রজাতন্ত্র
ভারত
পতাকাজাতীয় প্রতীক
নীতিবাক্য"সত্যমেব জয়তে" (সংস্কৃত)
"সত্যই জয়লাভ করে"[১]
জাতীয় সঙ্গীত: জনগণমনঅধিনায়ক জয় হে
"জনগণমনঅধিনায়ক জয় হে ভারতভাগ্যবিধাতা"[২][৩]
মেনু
0:00
জাতীয় স্তোত্র[৫]
বন্দে মাতরম
বন্দনা করি মায়ে
[৪]
রাজধানীনয়া দিল্লি
২৮°৩৪′ উত্তর ৭৭°১২′ পূর্ব
বৃহত্তম শহরমুম্বই
সরকারি ভাষাকেন্দ্রীয় স্তরে:

জাতীয় ভাষানেই
জাতীয়তাসূচক বিশেষণভারতীয়
সরকারযুক্তরাষ্ট্রীয় প্রজাতন্ত্র
 • রাষ্ট্রপতিরাম নাথ কোবিন্দ
 • প্রধানমন্ত্রীনরেন্দ্র মোদি
আইন-সভাসংসদ
 • উচ্চকক্ষরাজ্যসভা
 • নিম্নকক্ষলোকসভা
স্বাধীনতা যুক্তরাজ্য থেকে
 • ঘোষিত১৫ আগস্ট ১৯৪৭ 
 • প্রজাতন্ত্র২৬ জানুয়ারি ১৯৫০ 
ক্ষেত্রফল
 • মোট৩২,৮৭,৫৯০[১১] কিমি(৭ম)
১২,৬৯,৩৪৬ বর্গ মাইল
 • জল/পানি (%)৯.৫৬
জনসংখ্যা
 • ২০১২ আদমশুমারি১,২১০,১৯৩, ৪২২[১২](2nd)
মোট দেশজ উৎপাদন
(ক্রয়ক্ষমতা সমতা)
২০১২ আনুমানিক
 • মোট$৩.৬৬৬ ট্রিলিয়ন[১৩](৯ম)
 • মাথা পিছু$৩,৮৫১ (১২৯তম)
মোট দেশজ উৎপাদন (নামমাত্র)২০১২ আনুমানিক
 • মোট$১.৯৪৭ ট্রিলিয়ন[১৪](১0তম)
 • মাথা পিছু$১৫৯২ (১৪০তম)
জিনি সহগ (২০১০)৩৩.৯[১৫]
মাধ্যম
মানব উন্নয়ন সূচক(২০১২)০.৫৫৪[১৬]
মধ্যম · ১৩৬তম
মুদ্রাভারতীয় টাকা
প্রতীকIndian Rupee symbol.svg (INR)
সময় অঞ্চলভারতীয় প্রমাণ সময়(ইউটিসি+৫:৩০)
 • গ্রীষ্মকালীন (ডিএসটি)পর্যবেক্ষণ করা হয়নি (ইউটিসি+৫:৩০)
কলিং কোড৯১
ইন্টারনেট টিএলডি.in

ভারত  : দক্ষিণ এশিয়ার একটি রাষ্ট্র। দেশটির সরকারি নাম ভারতীয় প্রজাতন্ত্র। ভৌগোলিক আয়তনের বিচারে এটি দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম এবং বিশ্বের সপ্তম বৃহত্তম রাষ্ট্র। অন্যদিকে জনসংখ্যার বিচারে এই দেশ বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বাধিক জনবহুল এবং পৃথিবীর বৃহত্তম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র। ভারতের পশ্চিম সীমান্তে পাকিস্তান[১৭] উত্তর-পূর্বে চীন, নেপাল, ও ভূটান এবং পূর্বে বাংলাদেশ ও মায়ানমার অবস্থিত। এছাড়া ভারত মহাসাগরে অবস্থিত শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ ও ইন্দোনেশিয়া ভারতের নিকটবর্তী কয়েকটি দ্বীপরাষ্ট্র। দক্ষিণে ভারত মহাসাগর, পশ্চিমে আরব সাগর ও পূর্বে বঙ্গোপসাগর দ্বারা বেষ্টিত ভারতের উপকূলরেখার সম্মিলিত দৈর্ঘ্য ৭,৫১৭ কিলোমিটার (৪,৬৭১ মাইল)।

বর্তমানে ভারত ২৯টি রাজ্য ও সাতটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বিশিষ্ট একটি সংসদীয় সাধারণতন্ত্র। ভারতীয় অর্থব্যবস্থা বাজারি বিনিময় হারের বিচারে বিশ্বে দ্বাদশ ও ক্রয়ক্ষমতা সমতার বিচারে বিশ্বে চতুর্থ বৃহত্তম। ১৯৯১ সালে ভারত সরকার গৃহীত আর্থিক সংস্কার নীতির ফলশ্রুতিতে আজ আর্থিক বৃদ্ধিহারের বিচারে ভারত বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনৈতিক ব্যবস্থাগুলির মধ্যে দ্বিতীয়।[১৯] তবে অতিমাত্রায় দারিদ্র্য[২০], নিরক্ষরতা ও অপুষ্টি এখনও ভারতের অন্যতম প্রধান সমস্যা। সাংস্কৃতিক দৃষ্টিভঙ্গিতে ভারত একটি বহুধর্মীয়, বহুভাষিক, ও বহুজাতিক রাষ্ট্র। আবার বন্যপ্রাণী ও উদ্ভিদ জগতের নানা বৈচিত্র্যও এদেশে পরিলক্ষিত হয়।

১. অন্ধ্রপ্রদেশ১৯. নাগাল্যান্ড
২. অরুণাচল প্রদেশ২০. ওড়িশা
৩. আসাম২১. পাঞ্চাব
৪. বিহার২২. রাজস্থান
৫. ছত্তীসগঢ়২৩. সিক্কিম
৬. গোয়া২৪. তামিলনাড়ু
৭. গুজরাত২৫. তেলঙ্গানা
৮. হরিয়াণা২৬. ত্রিপুরা
৯. হিমাচল প্রদেশ২৭. উত্তরপ্রদেশ
১০. জম্মু ও কাশ্মীর২৮. উত্তরাখণ্ড
১১. ঝাড়খণ্ড২৯. পশ্চিমবঙ্গ
১২. কর্ণাটকক. আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ
১৩. কেরলখ. চণ্ডীগড়
১৪. মধ্যপ্রদেশগ. দাদরা ও নগর হাভেলি
১৫. মহারাষ্ট্রঘ. দমন ও দিউ
১৬. মণিপুরঙ. লক্ষদ্বীপ
১৭. মেঘালয়চ. দিল্লি জাতীয় রাজধানী অঞ্চল
১৮. মিজোরামছ. পুদুচেরি
জনপরিসংখ্যান

দাক্ষিণাত্যের তোডা উপজাতির কুটির ভারত বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বাধিক জনবহুল রাষ্ট্র। ২০১৮ সালে দেশটির আনুমানিক জনসংখ্যা প্রায় ১৩৫ কোটি। ভারতের জনসংখ্যা পৃথিবীর মোট জন সংখ্যার প্রায় ১৭.৭৪ শতাংশ। সাম্প্রতিক কালে বার্ষিক জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার প্রতি হাজার জনে ১১.১০ জন বা ১.১১ শতাংশ। গড়ে প্রতি দুই সেকেণ্ডে জনসংখ্যা একজন করে বাড়ে। যদিও সাম্প্রতিক দশকগুলিতে গ্রাম থেকে শহরে অভিবাসনের হার বৃদ্ধি পাওয়ায় ভারতে শহরাঞ্চলীয় জনসংখ্যা বহুল পরিমাণে বৃদ্ধি পেয়েছে, তথাপি প্রায় ৬৬.৮০ শতাংশ ভারতবাসী গ্রামাঞ্চলে বাস করেন। জনসংখ্যার ৩৩.২০ শতাংশ শহরে বসবাস করে। এ দেশে প্রতি বর্গকিলোমিটারে জনবসতি ৪৫৫ জন। ভারতের বৃহত্তম মহানগরগুলির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল মুম্বই (পূর্বনাম বম্বে বা বোম্বাই), নতুন দিল্লি, বেঙ্গালুরু (পূর্বনাম ব্যাঙ্গালোর), কলকাতা, হায়দ্রাবাদ ও আহমদাবাদ। ২০১৩-১৫ কালপর্বে জাতীয় পর্যায়ে লিঙ্গানুপাত প্রতি হাজার পুরুষের বিপরীতে ৯০০ জন নারী।২০১১-এর জনমিতি অনুযায়ী ভারতে সাক্ষরতার হার ৭৪.০৪ শতাংশ, যা পুরুষদের মধ্যে ৮২.১৪ শতাংশ এবং নারীদের মধ্যে ৬৫.৪৬ শতাংশ। সাক্ষরতার সর্বনিম্ন হার বিহার রাজ্যে: ৬৩.৮২ শতাংশ।শহর-গ্রাম স্বা‌ক্ষরতার পার্থ‌ক্য ২০০১ সালে ছিল ২১.২ শতাংশ, যা ২০১১ সালে নেমে আসে ১৬.১ শতাংশে। গ্রামীন অঞ্চলগুলোতে স্বা‌ক্ষরতা বৃদ্ধির হার শহর এলাকার তুলনায় দ্বিগুণ। সাক্ষরতার হার সর্বাধিক কেরল রাজ্যে (৯১%)

ভাষা

ভারতের দুটি প্রধান ভাষাগোষ্ঠী হল ইন্দো-আর্য (মোট জনসংখ্যার ৭৪%) ও দ্রাবিড় (মোট জনসংখ্যার ২৪%)। অপরাপর ভাষাগোষ্ঠীগুলি হল অস্ট্রো-এশিয়াটিক ও তিব্বতি-বর্মী ভাষাগোষ্ঠী। ভারতের বৃহত্তম জনগোষ্ঠীয় ভাষা হিন্দি যা কি-না কেন্দ্রীয় সরকারের দাপ্তরিক ভাষা হিসেবে নির্ধারিত।“সহকারী দাপ্তরিক ভাষা” ইংরেজি প্রশাসন ও বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে বহুল ব্যবহৃত। উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রেও ইংরেজির প্রাধান্য প্রশ্নাতীত। ভারতের সংবিধান বাংলা-সহ ২২টি ভাষাকে সরকারি ভাষার মর্যাদা দিয়েছে। এগুলি হয় প্রচলিত, নয় ধ্রুপদি ভাষা। প্রাচীনকাল থেকেই ভারতে ধ্রুপদি ভাষার মর্যাদা পেয়ে আসা তামিল ও সংস্কৃত এবং কন্নড় ও তেলুগু ভাষাকে ভারত সরকার নিজস্ব একটি যোগ্যতাসূচকবলে ধ্রুপদি ভাষার মর্যাদা দান করেছে।ভারতে উপ-ভাষার সংখ্যা ১,৬৫২টি।

ধর্ম‌
ভারতের ধর্ম

  হিন্দু (৮০.৫%)
  ইসলাম (১৩.৪%)
  খ্রিস্টান (২.৩%)
  জৈন (০.৪%)
  বৌদ্ধ (০.৮%)
  শিখ (১.৯%)
  অন্যান্য (০.৭%)
৮০ কোটিরও বেশি (৮০.৫%) ভারতবাসী হিন্দু। অন্যান্য ধর্মসম্প্রদায়গুলির মধ্যে রয়েছে মুসলমান (১৩.৪%), খ্রিস্টান (২.৩%), শিখ (১.৯%), বৌদ্ধ (০.৮%), জৈন (০.৪%), ইহুদি, পারসি ও বাহাই ধর্মাবলম্বী মানুষ। উল্লেখ্য, ভারতে বিশ্বের বৃহত্তম হিন্দু, শিখ, জৈন, জরাথ্রুষ্টবাদী ও বাহাই ধর্মা‌বলম্বী জনসংখ্যা রয়েছে এবং ভারতে মুসলিম জনসংখ্যা সমগ্র বিশ্বের নিরিখে তৃতীয়-বৃহত্তম এবং অ-মুসলমান প্রধান দেশগুলির মধ্যে বৃহত্তম। দেশে আদিবাসী জনসংখ্যা ৮.১%।

সংস্কৃতি

আগ্রার তাজমহল,শাহজাহান কর্তৃক পত্নী মুমতাজ মহলের স্মৃতিতে নির্মিত। ইউনেস্কো এর অসামান্য বিশ্বজনীন মূল্য বিচার করে এটিকে বিশ্ব ঐতিহ্য ভবন ঘোষণা করেছে।আফ্রিকা মহাদেশের পরেই ভারত সংস্কৃতি, ভাষা ও জাতিগতভাবে বিশ্বে সর্বাধিক বৈচিত্র্যপূর্ণ ভৌগোলিক অঞ্চল।"সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের মধ্যে ঐক্য"ভারতীয় সংস্কৃতির প্রধান বৈশিষ্ট্য। এই সংস্কৃতি স্বকীয় ঐতিহ্য রক্ষার পাশাপাশি বৈদেশিক আক্রমণকারী ও বহিরাগত জাতিগুলির থেকে গ্রহণ করা রীতিনীতি, ঐতিহ্য ও ধারণা অঙ্গীভূত করে এশিয়ার অন্যান্য অঞ্চলের সংস্কৃতির ওপর নিজ প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম হয়েছে।

স্থাপত্য

ভারতীয় স্থাপত্য এমন একটি বিষয় যার মধ্যে ভারতীয় সংস্কৃতির এই বৈচিত্র্যময় রূপটি ধরা পড়ে। তাজমহল ও অন্যান্য মুঘল স্থাপত্য নিদর্শন তথা দ্রাবিড় স্থাপত্য নিদর্শনগুলির মধ্যে ভারত ও বহির্ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের প্রাচীন ও স্থানীয় ঐতিহ্যের সম্মিলন লক্ষিত হয়। ভারতের স্থানীয় স্থাপত্যশৈলীগুলিও দেশের এক গুরুত্বপূর্ণ আঞ্চলিক স্থাপত্য-বৈচিত্র্যের সাক্ষী।

পরিবেশন শিল্পকলা

ভারতীয় সঙ্গীতের জগৎটি গঠিত হয়েছে ধ্রুপদি ও আঞ্চলিক সংগীত ধারার সংমিশ্রণে। ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীত দুটি ধারায় বিভক্ত – উত্তর ভারতের হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সঙ্গীত এবং দক্ষিণ ভারতের কর্ণাটিক সংগীত। এই দুই প্রধান সংগীত ধারা থেকে আবার উৎসারিত হয়েছে অনেক উপধারা। আঞ্চলিক জনপ্রিয় সঙ্গীতের মধ্যে উল্লেখযোগ্য রবীন্দ্র সংগীত, হিন্দি ফিল্মি গান ও ইন্ডি-পপ এবং বাউল ও অন্যান্য বিভিন্ন প্রকার লোকসংগীত।

ভারতীয় নৃত্যকলাও “লোক” ও “ধ্রুপদী”—এই দুই প্রধান ভাগে বিভক্ত। ভারতের বিখ্যাত লোকনৃত্যগুলি হল পাঞ্জাবের ভাংড়া, অসমের বিহু নৃত্য, পশ্চিমবঙ্গের ছৌ নাচ এবং রাজস্থানের ঘুমার। ভারতের সঙ্গীত নাটক অকাদেমি দেশের আটটি নৃত্যকলাকে ধ্রুপদি ভারতীয় নৃত্য আখ্যা দিয়েছে। এগুলি হল তামিলনাড়ুর ভরতনট্যম, উত্তর প্রদেশের কত্থক, কেরলের কথাকলি ও মোহিনীআট্টম, অন্ধ্রপ্রদেশের কুচিপুডি, মণিপুরের মণিপুরি, ওডিশার ওডিশি এবং অসমের সত্রিয় নাচ। এই নৃত্যশৈলীগুলি বর্ণনাত্মক ও পৌরাণিক ঘটনাকেন্দ্রিক।

ভারত ভারতের জাতীয় প্রতীকসমূহ[১২৯]
পতাকাতিরঙ্গা
প্রতীকঅশোক স্তম্ভ
সংগীতজনগণমন-অধিনায়ক জয় হে
স্তোত্রবন্দে মাতরম্‌
পশুবাংলার বাঘ
ঐতিহ্যবাহী পশুভারতীয় হাতি
পাখিভারতীয় ময়ূর
জলচর প্রাণীগাঙ্গেয় ডলফিন
ফুলপদ্ম
গাছবট
ফলআম
খেলাফিল্ড হকি
সনশকাব্দ
নদীগঙ্গা[১৩০]
খেলাধূলা

ভারতের সুনির্দিষ্ট জাতীয় খেলা নেই। আনেকে একে কাবাডি কিংবা ফিল্ড হকি মনে করেন। কিন্তু বিষয়টি সুস্পষ্ট নয়। কাবাডি বিশ্বকাপে ভারত জয়ের হ্যাটট্রিকও করেছে। ইন্ডিয়ান হকি ফেডারেশনের উপর এদেশের হকি পরিচালনার দায়িত্ব ন্যস্ত। ভারতীয় হকি দল ১৯৭৫ সালের পুরুষদের হকি বিশ্বকাপ এবং পুরুষদের অলিম্পিক গেমসে পাঁচবার স্বর্ণপদক বিজয়ী। ফুটবল খেলা ভারতে জনপ্রিয়। ২০১৮-তে কলকাতার বিবেকানন্দ যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে প্রথম অনূর্ধ্ব ১৭ যুব বিশ্বকাপ ফুটবলের ফাইনাল খেলায় ইংল্যান্ড বিজয়ী হয়। আয়োজক দেশ হিসেবে ভারত খেলতে পেয়েও উল্লেখযোগ্য ফল পায়নি। ভারতের ফুটবল প্রতিযোগিতাগুলো হল: জাতীয় ফুটবল সন্তোষ ট্রফি, আইএফএ শিল্ড, ফেডারেশন কাপ, নেহরু কাপ, ডুরান্ড কাপ এবং ইন্ডিয়ান সুপার লিগ। ভারতে ফুটবল খেলা পরিচালনা করে অল ইন্ডিয়া ফুটবল ফেডারেশন (এআইএফএফ)। যদিও ভারতে সর্বাধিক জনপ্রিয় খেলা হল ক্রিকেট। ভারতীয় জাতীয় ক্রিকেট দল ১৯৮৩ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ, ২০০৭ সালের আইসিসি বিশ্ব টোয়েন্টি-২০ এবং ২০১১ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপ বিজয়ী। এছাড়াও ২০০৩ সালে ক্রিকেট বিশ্বকাপ ও ২০১৪ সালে আইসিসি বিশ্ব টোয়েন্টি-২০ তে ফাইনালে পরাজিত হয়। ভারতে ক্রিকেট পরিচালিত হয় বোর্ড অফ কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (বিসিসিআই) কর্তৃক। ভারতের ঘরোয়া ক্রিকেট প্রতিযোগিতাগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য রঞ্জি ট্রফি, দলীপ ট্রফি, দেওধর ট্রফি, ইরানি ট্রফি ও চ্যালেঞ্জার সিরিজ। ভারতের জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা দেশে প্রভূত জনপ্রিয়তা ও নানাবিধ বিশ্বরেকর্ডের অধিকারী।

ভারতীয় দলের ডেভিস কাপ বিজয়ের পর থেকে ভারতে টেনিসের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায়। অন্যদিকে ফুটবল পশ্চিমবঙ্গ, উত্তর-পূর্ব ভারত, গোয়া ও কেরলে বেশ জনপ্রিয়। ভারত জাতীয় ফুটবল দল বহুবার সাউথ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন কাপ জিতেছে। ভারত ১৯৫১ ও ১৯৮২ সালে এশিয়ান গেমস আয়োজন করেছিল। এছাড়াও ভারত ছিল ১৯৮৭ ও ১৯৯৬ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপের সহ-আয়োজক দেশ ছিল; ভারত ২০১১ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপের সহ-আয়োজক দেশ। দাবা খেলার উদ্ভবও হয়েছিল ভারতে। দেশে গ্রান্ডমাস্টার দাবাড়ুর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় আজ দাবা ভারতের অন্যতম জনপ্রিয় একটি খেলা। এছাড়াও দেশের অন্যান্য ঐতিহ্যবাহী জনপ্রিয় খেলা হল কাবাডি, খো খো, ও গুলি ডান্ডা ইত্যাদি। ভারতে প্রাচীন যোগব্যায়াম এবং বিভিন্ন ভারতীয় মার্শাল আর্ট, কালারিপ্পায়াত্তু, বার্মা কলাই ইত্যাদি আজও জনপ্রিয়। ভারতের সর্বোচ্চ অসামরিক ক্রীড়া পুরস্কার হল রাজীব গান্ধী খেলরত্ন ও অর্জুন পুরস্কার (খেলোয়াড়দের জন্য) এব দ্রোণাচার্য পুরস্কার (কোচিং-এর জন্য)।
বি:দ্র : পোস্ট টি ভাল লাগলে নীচের শেয়ার বাটনে ক্লিক করে সমস্ত বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। 


তথ্য সংগ্রহ : উইকিপিডিয়া।
Link 

1 comment: